গ্রামে ২০ টি লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া (Business Idea).

যারা গ্রামে বাস করেন তাদের মধ্যে হাজার হাজার মানুস আছে যারা বেকার অথবা অনেকে আছের যারা পড়াশোনা করছেন কিন্তু চাকরি পাচ্ছেন না। সবাই শুধু হতাশা নিয়ে সময় পার করছেন। ভাবছেন আপনাকে দিয়ে কিছুই হবে না। চারিদিকে শুধু অন্ধকার মনে হচ্ছে। আসুলে এ গুলো কোন ব্যাপার না। আপনি যদি ইচ্ছা করেন তাহলে আপনি গ্রামেই ভাল কিছু করতে পারবেন এবং চাইলে ভাল মানের ব্যবসা চালু করতে পারবেন অল্প পূজিতে।

আগে আপনি যে এলাকায় থাকেন সেই এলাকার চাহিদাটা দেখুন আর ভাল করে বোঝেন যে কোন পণ্য নিয়ে আপনি ব্যবসা করলে ভাল করতে পারবেন সেই পণ্য সিলেক্ট করুন।তাহলে হয়তো খুব তারাতারি আপনি ভাল কিছু করতে পারবেন।

চলুন তাহলে কিছু ব্যবসার আইডিয়া জেনে নেই।

১। কাঁচামালের ব্যবসা।

আপনি যদি কাঁচামালের ব্যবসা করেন তাহলে প্রতিদিন অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।কাঁচা সবজির প্রয়োজন নাই এমন মানুস খুজে পাওয়াই কঠিন। বাচতে হলে খেতে হবে আর খেতে হলে কাঁচামাল ও সবজি প্রতিদিনই মানুষের প্রয়োজন পরবে তাই আপনি যদি প্রতিদিন চাষি অথবা পাইকারের কাছ থেকে কাঁচামাল পাইকারি দরে কিনে বাজারে খুচরা বিক্রি করেন তাহলে দেখবেন আপনার প্রতিদিন অনেক টাকা লাভ হচ্ছে। আপনার বাজারে যে কাঁচামাল বেশি চাহিদা সেই কাঁচামালই আপনি বেশি নিয়ে আসেন দেখবেন ভাল বেচাকেনা হবে। এই ব্যবসাটা সহজ আর অল্প পূজিতে করতে পারবেন এবং লাভজনক।

২। মুদি দোকান

আজকাল মানুষ মুদি দোকান দিয়েও কিন্তু হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছে। আপনার যদি একটা ভাল মানের মুদি দোকান থাকে তাহলে প্রতিদিন আপনার নগদ ইনকাম পাবেন। যদি আপনি ব্যবসা বোঝেন আর ঠিক মত করতে পারেন তাহলে আপনি আঙুল ফুলে কলা কাছের মত হয়ে যাবেন। দেখবেন এক সময় আপনি অনেক টাকার মানুষ হয়ে গেছেন।

মুদি দোকানে মূলত যে সব প্রোডাক্ট থাকে তা হল। যেমন- চাল,ডাল,তৈল,লবণ,আটা,ময়দা, সুজি, সেমাই,পেঁয়াজ,রসুন,আদা,মরিচ,হলুদ,জিরা-মসলা,আলু, গুড়,মুড়ি,সাবান,সোডা, বিড়ি,পান-সুপারী,সিগারেট,হলুদ,বিস্কুট,চিড়া,মুড়ি,চকলেট,বাদাম,চানাচুর,ডিম, কেরোসিন তেল,বাল্ব,তেজপাতা,চিপস,ডিম,দুধ,শুকনা মরিচ,চা পাতা,মশার কয়েল,চিনি,কাগজ,আরো অনেক ধরনের প্রোডাক্ট তাছাড়া ফ্রিজের জিনিস- যেমন বরফ, পেপসি, জুস, ঠাণ্ডা,ইত্যাদি আরো হাজারও পদ আছে যা আপনি মুদি দোকানে বিক্রি করতে পারবেন।

৩। কাপড় ও কাগজের ব্যাগ তৈরি

ব্যাগ খুব দরকারি জিনিস যা আমাদের প্রায় প্রতিদিনই বহুল ক্ষেত্রে ব্যবহিত হয়। তাই এর কদর ও বেশি। আপনি বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন করা কাপর কিনে এনে সেলাইর মাধ্যমে ব্যাগ তৈরি করে আপনার এলাকায় অথবা সহরেও বিক্রি করতে পারবেন।

তাছারা এখন কাগজের ব্যাগ এর ও খুব চাহিদা তাই কাগজ কিনে আঠার সাহায্যে ব্যাগ বানিয়ে গ্রামের বাজারে, দোকানে, ও সহরেও পাইকারি এবং খুচরা সেল দিতে পারবেন।  আর এ ব্যবসায় খুব একটা বেশি মূলধন এর দরকারও হয় না। খুব কম খরচে আর সহজে এই ব্যবসা চালু করতে পারবেন।

৪। ফাস্টফুডের দোকান

ফাস্ট ফুড এখন মানুষ খুব বেশিই পছন্দ করে তাই আপনি যদি একটা ফাস্ট ফুডের দোকান করেন আশা করি ভালই হবে। ফাস্ট ফুডের বিভিন্ন আইটেম যদি আপনি ভালভাবে করতে পারেন তাহলে প্রতিদিন ভাল বেচাকেনা হবে আর লাভও অনেক।তবে সার্ভিস টা কিন্তু ভাল দিতে হবে আর সাধের রেচিপি বানাতে হবে।

৫। কোচিং সেন্টার

আপনি শিক্ষিত কিন্তু বেকার। ভাবছেন কি করবেন। আমার পার্সোনাল মতামত থাকবে আপনি যদি জব না পান তাহলে কোচিং সেন্টার দিতে পারেন। এতে আপনি আরো ভাল কিছু শিখবেন এবং ভাল মানের টাকাও ইনকাম হল। এখন তো কোচিং সেন্টার এর রমরমা ব্যবসা।  

৬। মোবাইল রিচার্জ, বিকাশ ও অনলাইন সেবা

আপনার যদি মোবাইল রিচার্জ, বিকাশ, রকেট আর অনলাইন সেবার দোকান থাকে তাহলে আশা করি আপনার ব্যবসাও ভাল হবে। মোবাইলে রিচার্জ দিবেন, বিকাশ, রকেট এ টাকা আদান-প্রদান করবেন আর অনলাইনে মানুষের বিভিন্ন কাজ করবেন- যেমন, ফর্ম ফিলাপ, ভর্তি, চাকরির বিষয় সহ বিভিন্ন সেবা দিবেন।এই ব্যবসাটা অনেক লাভজনক।

৭। হস্ত শিল্পের কাজ

হস্ত শিল্প আমাদের ঐতিহ্য তবে হস্ত শিল্পের কাজ করে মানুষ অনেক টাকা ইনকাম করছে। গ্রাম থেকে শুরু করে সহরে এর ব্যাপক চাহিদা। আপনি যদি ভাল হস্ত শিল্পের প্রোডাক্ট বানান তাহলে খুব ভাল চলবে। গ্রামের মানুষেরা বিভিন্ন প্রকার গয়না, পুতুল, খেলনা, মালা, জামা, নকশি কাথা, হাঁড়িপাতিল সহ অনেক বাহারি ডিজাইনের নতুন নতুন জিনিস তৈরি করে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৮। হোটেল বা খাবারের দোকান

আপনার যদি একটা হোটেল থাকে তাহলে কিন্তু অনেক টাকা ইনকাম। আপনি আপনার বাজারে একটা ভাল মানের হোটেল বা খাবারের দোকান দিতে পারেন আর খারার গুলো যদি মানুষের সাদ্ধের মধ্যে রাখতে পারেন তাহলে আশা করি আপনার দোকান ভাল চলবে। তবে মান সম্মত খাবার আর সার্ভিস ভাল হলে সবাই আপনার দোকানে খাবে।

৯। চা কফি পান সিগারেটের দোকান

চা কফি পান সিগারেট প্রায় প্রতিটি বাজারেই খুব ভাল চলে, গ্রামের মানুষ বিকাল হলে চায়ের দোকানে আড্ডা দিতে খুব ভালবাসে। সাথে চা কফি পান সিগারেট খুব ভাল চলে।  আপনি যদি এই দোকান দিতে পারেন আর ঠিকমত ভাল সার্ভিস দেন তাহলে আপনার দোকান ভাল চলবে। এই ব্যবসায় প্রচুর লাভ।

১০। সবজি ও ফল চাষাবাদ

আপনার যদি চাষাবাদ করতে ভাল লাগে তাহলে আপনি চাষাবাদ করতে পারেন। আপনার যদি জমি থাকে তাহলে আপনি সেখানে বিভিন্ন পদের সবজি অথবা ভাল মানের ফল চাষ করতে পারেন। বাজারে কোন সবজি বেশি চলে সেই সবজি চাষ করুন আর ভাবুন কোন সবজিতে লাভ বেশি সেটাই চাষ করার চেষ্টা করুন। বিভিন্ন আইটেম এর সবজি চাষ করুন অথবা ভাল মানের কোন ফল চাষ করুন। ঠিকমত কীটনাশক,সার আর ভাল পরিচর্যা করলে ফলন ভাল পাবেন ইনসা আল্লাহ।   

১১। গরু-ছাগল, হাঁসমুরগি ও কবুতর পালন

গরু ছাগল হাঁসমুরগি ও কবুতর পালন করে অনেকে অনেক টাকার মালিক হয়েছে এ কথা কিন্তু মিথ্যে সত্য। এটা লাভজনক ব্যবসা। গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই এ সব পালন করে আসছে। আপনি যদি এ গুলোর একটা খামার করতে পারেন তাহলে অনেক লাভবান হবেন।

১২। জামা কাপড় ও গার্মেন্টস ব্যবসা

বাজারে যদি আপনার একটা জামা কাপড় অথাবা গার্মেন্টস প্রোডাক্ট এর ব্যবসা থাকে তাহলে আপনি অনেক প্রফিট পেতে পারেন। বিশেষ করে ঈদে, পূজায় বা কোন উৎসবে আপনি ভাল বেচাকেনা করতে পারবেন আর সারা বছর তো কম বেশি বিক্রি হয়ই। অল্প তাকায় বেশ লাভজনক ব্যবসা।

১৩। মোবাইল,কম্পিউটার, টেলিভিশন ও ইলেকট্রনিক্স পণ্য রিপেয়ারিং

বর্তমান যুগ হল ডিজিটাল যুগ আর এই যুগে মানুষ বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল পণ্য কিনে থাকে আর সেই পণ্যতে আবার সমস্যাও হয় অনেক আর আপনি যদি সেই পণ্যের সমস্যা সমাধান বা রিপেয়ারিং করে দিতে পারেন তাহলে আপনি বিনিময়ে অনেক টাকা চার্জ করতে পারবেন। সাথে যদি কিছু ইলেকট্রনিক্স পণ্য রাখেন সেটা বিক্রি করে কিন্তু অনেক টাকা লাভ করতে পারেন। 

১৪। পাইকারি ব্যবসা

আপনার বাজারের আশেপাশে যদি একটা পাইকারি দোকান তাহলে কিন্তু সবাই অনেক খুশি হবে আর আপনার কাছ থেকে বাজারের দোকান মালিকরা আপনার প্রোডাক্ট নিয়ে অনেক বেশি লাভবান হবে কারন তাদের অনেক দূরে যেতে হচ্ছে না। সময় আর খরচও বাঁচল। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী আপনি পাইকারি ব্যবসা চালু করে দিতে পারেন।

১৫। ফার্মেসীর দোকান

বাজারে অথবা গ্রামে যদি একটা ফার্মেসীর দোকান থাকে তাহলে কিন্তু হাজার হাজার মানুষ উপকৃত হবে। আপনি যদি ফার্মেসী বিষয়ে পড়াশোনা করে থাকেন অথবা প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু খুব ভাল। আপনি বাজারে অথবা যেখানে হসপিটাল আছে এমন জায়গায় যদি একটা ফার্মেসীর দোকান দেন তাহলে আপনার কেনাবেচা অনেক ভাল হবে আর এটা একটা লাভজনন ব্যবসা।

১৬। দই মিষ্টি ও ফলের দোকান

দই মিষ্টি আর ফল পছন্দ করে না এমন মানুষ কিন্তু খুজে পাওয়া দায়। আপনি যদি বাজারে বা আপনার গ্রামের ভাল পজিশনে একটা দই মিষ্টি আর ফলের দোকান দেন তাহলে আশা করি ভাল বেচাকেনা হতে পারে। ভাল মানের দই আর মিষ্টি বানালে সবাই আপনার কাছ থেকেই কিনবে।

১৭। কসমেটিক্স ও লাইব্রেরী

বাজার অথবা স্কুল-কলেজের পাশে আপনি যদি একটা কসমেটিক্স ও লাইব্রেরীর দোকান দেন তাহলে আপনার ভাল বেচাকেনা হবে। আর এ সব পণ্যের থেকে বেশি লাভবান হওয়া যায়।

১৮। জুস তৈরি

জুস তৈরি করে বিক্রি করা লাভজনক ব্যবসা। গরমের দিনে তো এটা খুব চলবে। বাজারে বা স্কুল কলেজের সামনে এমন দোকান থাকলে তো খুব ভাল হয়। অল্প টাকায় ভালমানের ব্যবসা। প্রচুর লাভ হয় এই ব্যবসায়।

১৯। সেলাই বা দর্জির দোকান 

সেলাই বা দর্জির দোকানে কিন্তু ইদ অথবা অন্য কোন উৎসবে সেই ভিড় জমে । কাজের শেষ থাকে না। তাছাড়া সব সময়েই সেলাই বা দর্জির কাজের কদর আছে। সাথে যদি কিছু জামা আর প্যান্টের কাপর রাখেন তাহলে তো আপনার ব্যবসা আরো ভাল হবে।

২০। মেকানিক্স অথবা ওয়ার্কশপ ব্যবসা

আপনি যদি মেকানিক্স এর কাজ জানের তাহলে তো খুব ভাল, সাইকেল, হোন্ডা এর মেকানিক্সরা খুব ভাল টাকা ইনকাম করে আর ওয়ার্কশপের কাজে তো অনেক টাকা। আপনি যদি ওয়েল্ডিং এর কাজ জানেন তাহলে কিন্তু আপনি একটি দোকান দিয়ে ভাল কাজের মাধ্যমে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন। দরজা, জানাল সহ ঘরের বিভিন্ন জিনিস বানিয়ে বিক্রি করে লাভবান হতে পারেন।

তবে আপনাকে মাথায় রাখতে হবে যাই করেন না কেন সব কিছু হিসাব করে করবেন। ব্যবসা যত সহজ আবার তত কঠিন। উপরের ব্যবসার আইডিয়ার মধ্যে আপনার যেটা ভাল লাগে সেটাই করার চেষ্টা করুন। আপনি প্রতিদিন হিসাব রাখুন, আপনার লাভ লস হিসাব করুন। দেখবেন একদিন আপনি অনেক ভাল মানের ব্যবসায়ী হয়ে গেছেন। আশা করি আইডিয়া গুলো আপনাদের অনেক কাজে আসবে। ধন্যবাদ

আমি ফুয়াদ আলম, আমি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়াশোনা করেছি এবং চাকরী করি তাই বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে টেকনোলজির খুঁটিনাটি এবং বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করবো। সেই সাথে অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায় সে বিষয়ে ধারনা দেব। আশা করি সবাই সঙ্গে থাকবেন।

Sharing Is Caring: